dark_mode
Wednesday, 17 August 2022
Logo
শিক্ষার্থীবান্ধব ক্যাম্পাস গড়তে কাজ করবে ইবি ছাত্রলীগ

ছবিঃ ডিবিবি

শিক্ষার্থীবান্ধব ক্যাম্পাস গড়তে কাজ করবে ইবি ছাত্রলীগ

শিক্ষার্থীবান্ধব ক্যাম্পাস গড়ে তুলতে চায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ। বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) বিকাল তিনটার দিকে বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান মিলনায়তনে অবস্থিত প্রেস কর্ণারে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভায় এ প্রত্যয় ব্যক্ত করেন শাখা ছাত্রলীগের নতুন কমিটির নেতৃবৃন্দ।

 

এসময় তারা বলেন, ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে শিক্ষার্থীবান্ধব কাজ করে আসছে। আমরাও সেই ধারাবাহিতা ধরে রাখবো। মাদকমুক্ত ও পড়াশোনার উপযোগী ক্যাম্পাস গড়তে আমরা বদ্ধপরিকর।

 

সভায় উপস্থিত ছিলেন নতুন কমিটির সভাপতি ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাত, সাধারণ সম্পাদক নাসিম আহমেদ জয়সহ কমিটির নেতৃবৃন্দ। এছাড়াও ইবি প্রেসক্লাবের সভাপতি সরকার মাসুম, সাধারণ সম্পাদক তারিকুল ইসলামসহ বিভিন্ন পত্রিকায় কর্মরত সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

 

এসময় নবনিযুক্ত সভাপতি ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাত বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। তাই আমরা তার আদর্শকে ধারণ করে সামনে এগিয়ে যাবো। কোন প্রকার অন্যায় ও অপকর্মকে প্রশ্রয় দেওয়া হবে না।

#এওয়াই

Share this news

Print this news

  • comment / reply_from

    face comment

    ইবির দুই শিক্ষকের পিএইচ.ডি ডিগ্রী অর্জন

    নুর আলম

    ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের অথর্নীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক পার্থ সারথী লস্কর ও শাহেদ আহমেদ পিএইচ.ডি ডিগ্রী অর্জন করেছেন। গত ৯ আগষ্ট ২০২২ অনুষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৫৫তম সিন্ডিকেট সভায় ও ১২৩তম একাডেমিক কাউন্সিল সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাদের এ ডিগ্রি প্রদান করা হয়।

     

    ড. পার্থ সারথী লস্কর ২০১৪-১৫ (পিএইচ.ডি) শিক্ষাবর্ষে 'Foreign Direct in Investment, Foreign Remittance and Economic Growth in Bangladesh: A study' শিরোনামে ও ড. শাহেদ আহমেদ ২০১৬-১৭ (পিএইচ.ডি) শিক্ষাবর্ষে 'Foreign Direct Investment in Bangladesh: An Econometric Analysis' শিরোনামে এ পিএইচ.ডি সম্পন্ন করেন। তারা দুজনই বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ ও অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. আলমগীর হোসেন ভুঁইয়ার অধীনে এ ডিগ্রী অর্জন করেন।

     

    ড. শাহেদ আহমেদ অনুভূতি ব্যক্ত করে বলেন, বৈদেশিক সরাসরি বিনিয়োগ দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। আমার বৈদেশিক বিনিয়োগের উপর যে গবেষণা প্রবন্ধটি নির্মাণ করা হয়েছে এটা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে একটা দিকনির্দেশনা হিসেবে কাজ করবে। ভবিষ্যতে আরো বৈদেশিক বিনিয়োগে আকৃষ্ট করতে হলে কি কি কর্মপরিকল্পনা সরকারের নিতে হবে সেই সম্পর্কে দিকনির্দেশনা এখানে দেওয়া আছে। বর্তমানে বৈদেশিক বিনিয়োগ দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে কি ভূমিকা রাখছে সেই সম্পর্কে এই প্রবন্ধে আলোচনা করা হয়েছে। একই সাথে এর সীমাবদ্ধতার বিষয়েও আলোচনা করা হয়েছে।

     

    ড. পার্থ সারথী লস্কর বলেন, বিদেশী প্রত্যক্ষ বিনিয়োগ, বৈদেশিক রেমিট্যান্স বাংলাদেশে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এটা সরকার পলিসি হিসেবে গ্রহণ করে দেশকে আরো উন্নত করতে পারে। এছাড়া আমি ব্যক্তিগতভাবে খুশি ও আনন্দিত। আমি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠানের প্রতি কৃতজ্ঞ এবং আমার পিএইচডি অর্জনের সাথে জড়িত তাদের সকলের প্রতি আমি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি।

     

    উল্লেখ্য: তারা দুজনই এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগ থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন।

    #এওয়াই

    শোক দিবস উপলক্ষে ইবিতে আলোচনা সভা

    নুর আলম

    জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭ তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

     

    মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) বেলা ১১ টায় বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান মিলনায়তে বঙ্গবন্ধু পরিষদের উদ্যোগে এটি অনুষ্ঠিত হয়।

     

    এসময় সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মাহবুবুল আরফিনের সঞ্চালনায় প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান লাল্টু। আলোচক হিসেবে ছিলেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটির আইন বিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক ড. শাহজাহান মন্ডল। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু পরিষদের জাতীয় শোক দিবস ও গ্রেনেড হামলা দিবস উদযাপন কমিটির আহবায়ক অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন।

     

    অনুষ্ঠানে সংগঠনটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর হোসেনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহবুবুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আলমগীর হোসেন ভুঁইয়া, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এইচ এম আলী হাসান।

     

    এছাড়াও প্রভোস্ট কাউন্সিলের সভাপতি অধ্যাপক ড. ইয়াসমিন আরা সাথী, প্রেস প্রশাসক ড. সাজ্জাদ হোসেনসহ শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

     

    প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুস সালাম বলেন, বঙ্গবন্ধুকে ষড়যন্ত্র করে মারা হয়েছে। তার কাছের মানুষ গুলোই তাকে হত্যা করেছে। তাকে যখন হত্যা করা হয় তখন আমরা মিছিল বের করতে পারিনি। মাত্র ১২ জন মানুষের ফাসি হয়ে এর পাপ মোচন হবে না। যারা এর সাথে জড়িত সবাইকে শাস্তির আওতায় আনতে হবে। বঙ্গবন্ধু যেমন আমাদের ছিলেন তেমনি আমরাও বঙ্গবন্ধুর হয়ে আগামীতে পথ চলতে হবে।

     

    আলোচনা সভা শেষে কুইজ ও উপস্থিত বক্তৃতা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

    #এওয়াই

    বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুবার্ষিকীতে ইবিতে ছাত্রলীগের খাবার বিতরণ

    নুর আলম

    জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭ তম মৃত্যুবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে খাবার বিতরণ করছে ইসলামী বিশ্ববদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ। সোমবার (১৫ আগস্ট) দুপুর ১ টায় তাদের দলীয় টেন্ডে এ কর্মসূচী পালন করেন।

     

    এসময় ক্যাম্পাসের শ্রমজীবী, হতদরিদ্র ও সাধারণ শিক্ষার্থীদের মাঝে খাবার বিতরণ করা হয়।

     

    খাবার বিতরণ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহবুবুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আমলগীর হোসেন ভুঁইয়া, রেজিস্ট্রার এইচ এম আলী হাসান, পরিবহন প্রশাসক অধ্যাপক ড. আনেয়ার হোসেন।


    এছাড়াও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের প্রভোস্ট ও বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মাহবুবুল আরফিন, আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. শাহজাহান মন্ডল, প্রেস প্রশাসক ড. সাজ্জাদ হোসেন, শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাত, সাধারণ সম্পাদক নাসিম আহমেদ জয়, সহ-সভাপতি তন্ময় সাহা টনিসহ নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

     

    এর আগে দিবসটি উপলক্ষে ক্যাম্পাসের প্রধান ফটক সংলগ্ন মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিব ম্যুরালে তারা শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন।

    #এওয়াই

    শোক দিবসে ইবি প্রেসক্লাবের শ্রদ্ধাঞ্জলি

    মো: নুর আলম

    জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭ তম মৃত্যুবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেছে প্রগতিশীল সাংবাদিক সংগঠন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) প্রেসক্লাব। সোমবার (১৫ আগস্ট) সকাল সাড়ে ১০ টায় ক্যাম্পাসের প্রধান ফটক সংলগ্ন মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিব ম্যুরালে তারা এ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

     

    এসময় সংগঠনটির সভাপতি সরকার মাসুম, সাধারণ সম্পাদক তারিকুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রুমি নোমান, প্রচার, প্রকাশনা ও সাহিত্য সম্পাদক আবু হুরায়রা, দপ্তর সম্পাদক মুতাসিম বিল্লাহ পাপ্পু , ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক রায়হান মাহবুব, কার্যনিবার্হী সদস্য মুনজুরুল ইসলাম নাহিদ ও আদিল সরকারসহ অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

     

    এর আগে দিবসটি উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহবুবুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আমলগীর হোসেন ভুঁইয়া। এছাড়াও শিক্ষক সমিতি, বঙ্গবন্ধু পরিষদ, বঙ্গবন্ধু পরিষদ শিক্ষক ইউনিট, শাপলা ফোরাম, কর্মচারী সমিতি, সহায়ক কর্মচারী সমিতি, সহায়ক টেকনিক্যাল কর্মচারী সমিতি, আবাসিক হল, অনুষদ, বিভাগ, শাখা ছাত্রলীগ, ডিবেটিং সোসাইটিসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন।

    বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ অবিচ্ছেদ অংশ: ইবি উপাচার্য

    ডিবিবি

    ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম বলেছেন, জাতির জনককে হত্যা করে বাংলাদেশকে ৪৭ বছর পিছিয়ে দিয়েছে দুষ্কৃতকারীরা। বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ অবিচ্ছেদ অংশ। একটি ছাড়া অন্যটি কল্পনা করা যায় না। যতদিন বাংলাদেশ থাকবে ততদিন মুজিবের অবদান রয়ে যাবে। শোক আমাদের শক্তি জোগায়। বাংলাদেশ যতদূর এগিয়ে যাবে ততদূর বঙ্গবন্ধুর নাম অম্লান থাকবে। সামনের দিনগুলোতে আমরা একসাথে তার আদর্শকে বুকে ধারণ করে সামনে এগিয়ে যাবো।

     

    সোমবার (১৫ আগস্ট) সকাল ১০ টায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭ তম মৃত্যুবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিব ম্যুরালে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন শেষে আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

     

    এসময় উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহবুবুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আমলগীর হোসেন ভুঁইয়া, রেজিস্ট্রার এইচ এম আলী হাসান, প্রক্টর অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর হোসেন, পরিবহন প্রশাসক অধ্যাপক ড. আনেয়ার হোসেন, ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. শেলীনা নাসরীন, প্রধান প্রকৌশলী মুন্সী সহিদ উদ্দীন মো: তারেক। এছাড়াও বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মাহবুবুল আরফিন, শাপলা ফোরামের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মামুনুর রহমান, শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাত, সাধারণ সম্পাদক নাসিম আহমেদ জয়সহ শাখা ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

     

    এদিকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ছাড়াও শিক্ষক সমিতি, বঙ্গবন্ধু পরিষদ, বঙ্গবন্ধু পরিষদ শিক্ষক ইউনিট, শাপলা ফোরাম, কর্মচারী সমিতি, সহায়ক কর্মচারী সমিতি, সহায়ক টেকনিক্যাল কর্মচারী সমিতি, আবাসিক হল, অনুষদ, বিভাগ, শাখা ছাত্রলীগ, ডিবেটিং সোসাইটি ইবি প্রেসক্লাবসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন।

     

    আলোচনা সভা শেষে ১৫ আগস্টে নিহতদের মাগফেরাত কামনায় দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। দোয়া পরিচালনা করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের খতিব ড. আ স ম শোয়াইব আহমেদ। এছাড়াও বাদ জোহর কেন্দ্রীয় মসজিদে কুরআন খতম ও দোয়া মুনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

     

    এর আগে সকাল সাড়ে ৯টায় দিবসটি উপলক্ষে প্রশাসন ভবনের সামনে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম। এরপর সেখান থেকে শোক র‍্যালি বের করা হয়। র‍্যালিটি ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষণ করে মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিব ম্যুরালের সামনে এসে শেষ হয়। এছাড়াও বিভিন্ন আবাসিক হলে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করা হয়।

    #এওয়াই

    বাকৃবিতে জাতীয় শোক দিবস পালিত

    ডিবিবি

    যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্যদিয়ে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে।

     

    দিবসটি উপলক্ষে সোমবার সকাল ৮ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু চত্ত্বরে অবস্থিত বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন উপচার্য অধ্যাপক ড. লুৎফুল হাসান। এসময় এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। এরপর জাতীয় দিবস উদযাপন কমিটির ব্যবস্থাপনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ এবং সকল রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতা কর্মীরা পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

     

    এসময় উপস্থিত ছিলেন ছাত্র বিষয়ক উপদেষ্টা অধ্যাপক ড.খান মো. সাইফুল ইসলাম,সহযোগী ছাত্র বিষয়ক অধ্যাপক ড. মো আজহারুল ইসলাম,প্রক্টর অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ মহির উদ্দীন প্রমুখ।

     

    এ সময় উপাচার্য লুৎফুল হাসান বলেন,১৯৭৫ সালের আজকেএ এই দিনে সেনাবাহিনীর বিপথগামী একদল ঘাতকের হাতে নৃশংসভাবে সপরিবারে প্রাণ হারান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।এমন ভয়াবহ হত্যার ঘটনা পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল। তিনি কাজ করেছিলেন ক্ষুধা ও দারিদ্র্য মুক্ত একটি শিক্ষিত জাতি গড়তে। তাই শোকের মাসকে শক্তিতে রুপান্তরিত করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নত বাংলাদেশ গড়ে তুলতে সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।

     

    উল্লেখ্য শোক দিবস উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের মসজিদ মন্দির এবং সকল উপসনালয়ে দোয়া-মাহফিল ও প্রাথনার আয়োজন করা হয়। এছাড়াও সূর্যাস্তের সাথে সাথে জাতীয় পতাকা ও কালো পতাকা অবনমন এবং শিল্পচার্য জয়নুল আবেদিন মিলনায়তনে ডিবেটিং সংঘের ব্যবস্থাপনায় সন্ধ্যায় ৭ টার দিকে বির্তক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

    #এওয়াই

    ববিতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা

    আসিব হাসান

    মহান স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৪৭ তম শাহাদাত বার্ষিকী ও শোক দিবস উপলক্ষে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির উদ্যোগে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে৷


    আজ ১৪ আগস্ট,বিকাল ৫ ঘটিকায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কীর্তনখোলা অডিটোরিয়ামে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় । সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড .মো.ছাদেকুল আরেফিন । বিশেষ অতিথি ছিলেন কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড . মোহাম্মদ বদরুজ্জামান ভূঁইয়া এবং কলা ও মানবিক অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড . মো. মুহসিন উদ্দীন । এসময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য বলেন , “ বঙ্গবন্ধু হত্যার মূল উদ্দেশ্য শারীরিক হত্যাকান্ড ছিলো না , ছিলো আদর্শিক "৷তিনি আরও বলেন,বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে দেশ ও জাতি গঠনে আমাদের সকলকে একত্রে কাজ করতে হবে৷


    বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড . মোঃ আব্দুল কাইউমের সভাপতিত্বে সভায় অন্যান্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু হলের প্রাধ্যক্ষ মোঃ আরিফ হোসেন , শেরে বাংলা হলের প্রধ্যক্ষ মোঃ আবু জাফর মিয়া , বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড . মোঃ খোরশেদ আলম , ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ তানভীর কায়ছার , আইন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ক্যামেলিয়া খান এবং লোক প্রশাসন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোঃ সিরাজিস সাদিক । শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড . মোহাম্মদ আবদুল বাতেন চৌধুরীর সঞ্চালনায় সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক , শিক্ষার্থী , কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন ।

    শোক দিবস উপলক্ষে ইবির খালেদা জিয়া হলে আলোচনা সভা

    নুর আলম

    ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) খালেদা জিয়া হলে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

     

    রোববার (১৪ আগস্ট) বিকাল ৪ টায় হলের টিভি কক্ষে এটি অনুষ্ঠিত হয়।

     

    অনুষ্ঠানে প্রভোস্ট কাউন্সিলের সভাপতি ও খালেদা জিয়া হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. ইয়াসমিন আরা সাথীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহবুবুর রহমান। এছাড়াও প্রক্টর অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর হোসেন, পরিবহন প্রশাসক অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. মিয়া মো: রাসিদুজ্জামান, শেখ রাসেল হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. দেবাশীষ শর্মা, সাদ্দাম হোসেন হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. আসাদুজ্জামান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

     

    প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম বলেন, আজকের যে বাংলাদেশটা আমরা দেখতে পাচ্ছি এটা একটা স্বপ্নের বাংলাদেশ। আমাদের দেশের উন্নয়নগুলো আমরা এখন চোখে দেখতে পাচ্ছি। বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে খুব বেশি শক্তিশালী না হলেও আমরা মেগা প্রকল্পগুলো হাতে নিয়েছি।

     

    এখানে যদি অন্য রাজনৈতিক মতাদর্শের কেউ থেকেও থাকেন তাদের প্রতি আমার অনুরোধ, ‘আমরা নতুন প্রজন্ম, আমরা শিক্ষার্থী, আমরা ইতিহাসটা সঠিকভাবে জানি। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে সমালোচনা করার কোনো সুযোগ নেই। সরকার, সরকার ব্যবস্থাপনা নিয়ে আপনারা ভিন্ন মত পোষণ করতে পারেন। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর যে নিজের পরিচয় ছিল, আমি বাঙালি, আমি মানুষ, আমি মুসলমান এই অনুভূতি নিয়েই আমাদের নতুন প্রজন্ম আলোকিত হোক। সেই আলোর মশাল নিয়ে আরো সামনের দিকে এগিয়ে যাক, এটাই প্রত্যাশা।

     

    আলোচনা সভা শেষে ১৫ আগস্টে নিহত ও ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলায় নিহত সকলের রুহের মাগফেরাত কামনায় দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

     

    পরে, শোক দিবস উপলক্ষ্যে রচনা প্রতিযোগীতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়।

    newsletter

    newsletter_description